Tuesday, এপ্রিল ২৩, ২০২৪

মালবাহী জাহাজ সরিয়ে চালু সুয়েজ খাল, স্বস্তিতে ইউরোপ-এশিয়ার বাণিজ্য

ডেস্ক রিপোর্টঃ ৬ দিন বন্ধ থাকার পর খুলল সুয়েজ খাল। একটি মালবাহী জাহাজ আটকে পড়ায় গত মঙ্গলবার থেকে বন্ধ হয়ে পড়েছিল এশিয়া থেকে ইউরোপে যাওয়ার সংক্ষিপ্ততম এই জলপথ। ফলে আচমকাই থমকে গিয়েছিল ২ মহাদেশের মধ্যে বাণিজ্যিক আদান-প্রদান। দীর্ঘ চেষ্টার পর সোমবার ফের তা চালু হল। জলে ভাসল আটকে পড়া মালবাহী জাহাজ। সুগম হল সুয়েজ।

করোনা পরিস্থিতিতে এমনিতেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২ মহাদেশের বাণিজ্যিক সরবরাহ। এর মধ্যে সুয়েজ বন্ধ হওয়ায় রীতিমতো বিপদে পড়েছিল ইউরোপ ও এশিয়ার বাণিজ্য মহল।দৈনিক ৯০০ কোটি ডলারের ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছিল তাঁদের। সোমবার সেই বাধা কাটায় স্বস্তি ফিরল বিশ্ববাণিজ্যে।

গত মঙ্গলবার মিশরের সুয়েজ খালে আটকে পড়ে পানামার মালবাহী জাহাজ এমভি এভার গ্রীন নামের জাহাজটি। একটি জাপানি সংস্থার মালিকানাধীন এভার গিভেনের দৈর্ঘ্য ৪০০ মিটার। মূলত এশিয়া-ইউরোপের মধ্যেই বাণিজ্যিক সরবরাহের কাজ করে এই জাহাজ। গত মঙ্গলবার সুয়েজের একমুখী সরু রাস্তায় বেকায়দায় পড়েই আটকে যায় জাহাজটি। অগভীর সুয়েজের বালিতে গেঁথে যায় জাহাজের তলদেশ। তাতেই আটকে যায় সুয়েজের গতিপথ। আটকে পড়ে ২ মহাদেশের বহু মালবাহী জাহাজও।

ইউরোপ থেকে জলপথে এশিয়া পৌঁছনোর ‘শর্টকাট’ বলা চলে সুয়েজকে। ভূমধ্যসাগরের সঙ্গে লোহিত সাগরকে জুড়েছে সুয়েজ। এই পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দৈনিক ৯০০ কোটি টাকার ক্ষতি স্বীকার করতে হচ্ছিল ২ মহাদেশের বাণিজ্যমহলকে। সেই ক্ষতি এড়াতেই গত ৬ দিনে ধরে চলছিল এভার গিভেনকে সরানোর চেষ্টা। শেষে ১০টি টাগবোটের সাহায্যে এভার গ্রীনের  কন্টেইনার সরিয়ে  ড্রেজারের সাহায্যে তাকে ভাসানো হয় । সোমবার স্থানীয় সময় ভোর ৫টা ৪২ মিনিটে ভাসে এভার গ্রীন । বার্নার্ড সালটে নাম এক সংস্থা সুয়েজে আটকে পড়া জাহাজগুলিকে উদ্ধারের কাজ করে। এভার গ্রীন সরানোর কাজও করছিল ।

Related Posts

Next Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

I agree to the Terms & Conditions and Privacy Policy.

ফেসবুকে ইউরোপ বাংলা