Wednesday, ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২৪

আমরা উত্তপ্ত তাওয়ার ওপর বসে আছি: ফারুকী

ইউরোপ বাংলা ডেস্ক : জনপ্রিয় নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। নির্মাণ ক্যারিয়ারে বেশ কিছু দর্শকপ্রিয় নাটক-চলচ্চিত্র উপহার দিয়েছেন। পলিট্রিক্যাল গল্প নিয়ে নির্মাণ করেছেন ‘৪২০’-এর মতো দীর্ঘ ধারাবাহিক। কাজের বাইরেও সমসাময়িক নানা বিষয় নিয়ে কথা বলতে দেখা যায় তাকে। নিজের এসব ভাবনা প্রকাশের জন্য বেছে নেন সোশ্যাল মিডিয়া।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। এ লেখার শুরুতে ‘ডুব’খ্যাত এই পরিচালক বলেন, ‘আমরা মোটামুটি উত্তপ্ত তাওয়ার ওপর বসে আছি। অনেকেই যেতে আসতে তাওয়ার নিচের আগুনে তুষ ছুড়ে দিচ্ছে, কেউবা দিচ্ছে ঘি। সামনের ডিসেম্বর আসতে আসতে এই তাওয়ার অবস্থা কি হয়- এই নিয়া বড় আতঙ্কে আছি। আমি নিশ্চিত, বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষই এরকম একটা উৎকণ্ঠার মধ্যে আছেন। এই উৎকণ্ঠা একমাত্র দূর করতে পারতো আমাদের দূরদর্শিতা, আমাদের দিলের রহম, আর সহাবস্থানে ইচ্ছুক মন।’

দেশে একটি আদর্শ অপর আদর্শকে ধ্বংস করতে চায়। তা উল্লেখ করে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা আমাদের সকল কমিটিই নির্মূল কমিটি। আমাদের সকল আদর্শই অপর আদর্শকে বিনাশ করার মধ্যেই নিজের গৌরব খুঁজে পায়! এখানে যে দল ক্ষমতায় থাকে তারা ক্ষমতার বাইরের দলকে নিশ্চিহ্ন করতে চায় এবং এটা পালাক্রমে চলতেই থাকে।’

অভিনেত্রী সাফা কবিরের উদাহরণ টেনে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, ‘নিশ্চিহ্ন করার বাসনা ব্যক্তি জীবনেরও এত গভীরে চলে যায় যে, শাহরিয়ার কবিরকে না চেনার অপরাধে বাচ্চা মেয়ে সাফা কবিরকে দেশের বাইরে পাঠাইয়া দিতে মন চায় আমাদের। যেন কিম জং উনকে না চেনার অপরাধে বসা এক কোর্ট মার্শাল। আমাকেও এরকম বহু মব ট্রায়ালে পাকিস্তানে পাঠাইয়া দেয়া হইছে। কোনো কোনো ট্রায়ালে ভারতে পাঠাইয়া দেয়া হইছে।’

কয়েক দিন আগে জামায়াতে ইসলামী সমাবেশ করেছে। তা উল্লেখ করে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, ‘২০১৪ বা ১৫ সালের দিকে একটা লেখায় লিখছিলাম, এই দেশে আওয়ামী লীগ-বিএনপি একটা বাস্তবতা। আওয়ামী লীগের পক্ষে বিএনপি সমর্থক কোটি কোটি মানুষকে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দেয়া সম্ভব না। বিএনপির পক্ষেও তা সম্ভব না। এমনকি জামায়াতে ইসলামী প্রায় দশ বছর প্রবল চাপের মুখে থেকেও সেদিন সমাবেশে দেখিয়েছে, আপনি চাইলেই কোনো একটা আদর্শে বিশ্বাসী মানুষদের মুছে দিতে পারেন না। বরং এই চেষ্টায় আখেরে যেটা হয় সেটা হলো আমাদের কালেকটিভ শক্তির ক্ষয়! জাতির প্রাণ শক্তি ক্ষয় হয়।’

সবাই একই স্রষ্টায় বিশ্বাসী হবে না, তা উল্লেখ করে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, ‘আমরা তো অনেক কিছুই ছেড়ে আসছি। উন্মুক্ত স্থানে টয়লেট করা বাদ দিছি। অ্যানালগ ফোনের জায়গায় মোবাইল টেপা শিখছি। এক সাথে থাকাটা কেন শিখতে পারব না? কেন এটা বুঝতে চাইব না সবাই আমার মতো একই স্রষ্টায় বিশ্বাসী হবে না, সবাই একই রকম খাবার খাবে না, একইভাবে ভালোবাসবে না? কেন এটা বুঝতে চাইবো না, যার যার স্টেক নিয়ে সমাজের সব পক্ষই পাশাপাশি থাকবে? তর্ক হবে, বিতর্ক হবে, কিন্তু নির্মূলের ব্যর্থ চেষ্টা হবে না। সময় এসেছে সকল নির্মূল কমিটির দোকান বন্ধ করে দেয়ার।’

Related Posts

Next Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

I agree to the Terms & Conditions and Privacy Policy.

ফেসবুকে ইউরোপ বাংলা