Tuesday, এপ্রিল ২৩, ২০২৪

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে অল্পের জন্য রক্ষা ভারতের

ইউরোপ বাংলা ডেস্ক : আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিটা জিততে হার্দিক পান্ডিয়ার ভারতকে তেমন বেগই পেতে হয়নি। তবে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে একটু এদিক ওদিক হলেই হারের কবলে পড়ত দলটি, শুরুতে ব্যাট করে ২২৫ রানের পাহাড় গড়েও। তবে সেটা হয়নি শেষ ওভারে উমরান মালিকের বোলিংয়ের সুবাদে। তাতেই ৪ রানের রুদ্ধশ্বাস এক জয় তুলে নেয় সফরকারীরা। ২-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করে আয়ারল্যান্ডকে।

বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার রাতে ডাবলিনের ম্যালাহাইডে দীপক হুদার সেঞ্চুরি ও সঞ্জু স্যামসনের ব্যাটে ভর করে ৭ উইকেটে ২২৫ রান সংগ্রহ করে ভারত। জবাবে দলগত পারফরম্যান্সে ভর করে ৫ উইকেট হারিয়ে ২২১ রানে থামে আইরিশরা। ৪ রানে জয় পায় ভারত। আর এর মধ্য দিয়ে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতে নেয় সফরকারীরা।

এদিন পাহাড়সম রান তাড়া করতে নেমে পল স্টার্লিং ও অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবিরনি ৫.৪ ওভারেই ৭২ রান তুলে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন স্বাগতিকদের। এই রানে স্টার্লিং আউট হন। মাত্র ১৮ বলে ৫টি চার ও ৩ ছক্কায় ৪০ রান করে যান তিনি। নতুন ব্যাটসম্যান গ্যারেথ ডিলানি ৪ বল খেলে কোনো রান না করেই আউট হন।

এরপর বালবিরনি ও হ্যারি টেকটর দলীয় সংগ্রহকে টেনে নিতে থাকেন। ১০.৩ ওভারে দলীয় রান নিয়ে যান ১১৭ তে। এই রানে ফিরেন অধিনায়ক। তিনি ৩টি চার ও ৭টি ছক্কায় ৬০ রান করে যান। নতুন ব্যাটসম্যান লরকান টুকার ৫ রান করে ফেরেন দলীয় ১৪২ রানে।

এরপর টেকটর ও জর্জ ডকরেল জয়ের বন্দরের দিকে নিয়ে যেতে থাকেন দলকে। ১৭ ওভার শেষে আয়ারল্যান্ডের রান দাঁড়ায় ৪ উইকেটে ১৮৯। অর্থাৎ জেতার জন্য শেষ ১৮ বলে প্রয়োজন ছিল ৩৭ রান। টি-টোয়েন্টিতে যা মোটেও অসম্ভব নয়। সেটা অবশ্য সম্ভব হতো যদি না ১৮তম ওভারের প্রথম বলেই টেকটর আউট হতেন। তিনি ৩৯ রান করে ফেরেন।

তারপরও ডকরেল ও মার্ক আডায়ার প্রাণান্তকর চেষ্টা করেন। ম্যাচ নিয়ে যান শেষ বল পর্যন্ত। এই বলে ছক্কা হাঁকাতে পারলেই জিতে যেতো তারা। কিন্তু আইপিএলে গতির ঝড় তুলে নিজেকে প্রমাণ করা উমরান মালিকের করা শেষ বলটিতে ১ রানের বেশি নিতে পারেননি। তাতে ২০ ওভার শেষে ২২১ রানেই থামতে হয় আইরিশদের। ডকরেল ৩ চার ও সমান সংখ্যক ছক্কায় ৩৪ রানে ও আডায়ার ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৩ রানে অপরাজিত থাকেন।

তার আগে ব্যাট করতে নেমে ১৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় ভারত। ৩ রান করে ফিরেন ইশান কিষান। এরপর স্যামসন ও হুদা মিলে ১৭৬ রান তোলেন দ্বিতীয় উইকেটে। ১৬.২ ওভারের মাথায় দলীয় ১৮৯ রানে ফেরেন স্যামসন। তিনি মাত্র ৪২ বলে ৯ চার ও ৪ ছক্কায় ৭৭ রান করেন। দীপক হুদা অবশ্য সেঞ্চুরি করে ফেরেন। তিনি ২১২ রানের মাথায় ৫৭ বলে ৯টি চার ও ৬ ছক্কায় ১০৪ রান করে আউট হন। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেট হারিয়ে ২২৫ রানে ইনিংস শেষ করে ভারত।

বল হাতে আয়ারল্যান্ডের মার্ক আডায়ার ৪২ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন। জশ লিটল ৩৮ রানে ও ক্রেইগ ইয়াং ৩৫ রান দিয়ে ২টি করে উইকেট নেন।

Related Posts

Next Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

I agree to the Terms & Conditions and Privacy Policy.

ফেসবুকে ইউরোপ বাংলা