Wednesday, এপ্রিল ২৪, ২০২৪

আগামী ২৭ জুলাই ঢাকায় মহাসমাবেশের ডাক দিল বিএনপি

ইউরোপ বাংলা ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পদত্যাগসহ নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠার এক দফা দাবিতে আগামী ২৭ জুলাই ঢাকায় মহাসমাবেশ করবে বিএনপি।আজ শনিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে তারুণ্যের সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ ঘোষণা দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন, খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দির মুক্তিসহ যুগপৎভাবে এক দফা দাবিতে পরবর্তী কর্মসূচি হিসেবে আগামী ২৭ জুলাই ঢাকায় শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশ কর্মসূচি পালিত হবে। এদিন ঢাকায় দুপুর দুইটায় শান্তিপূর্ণ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এই কর্মসূচিতে সবাইকে অংশ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, আমরা একটা নতুন বাংলাদেশের জন্য সংগ্রাম করছি। এখন বক্তব্য নয়। এখন দাবি আদায়ের পালা।

দফা এক, দাবি এক-শেখ হাসিনার পদত্যাগ। এক দফা যদি না মানে, তাহলে ফয়সালা হবে রাজপথে। এর আগে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির তারুণ্যের সমাবেশ শুরু হয় দুপুর ২টায়। কর্মসূচিটির আয়োজন করেছে বিএনপির তিন অঙ্গসংগঠন ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দল। নির্ধারিত সময়ের আগেই ঢাকার এই তারুণ্যের সমাবেশে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আশপাশের এলাকা লোকারণ্য হয়ে যায়। দুপুর নাগাদ সমাবেশস্থল কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে ওঠে। রমনা পার্ক, মৎস্য ভবন, কাকরাইল মোড়, শাহবাগ, হাইকোর্ট মোড়, সেগুনবাগিচা এলাকায় মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এস এম জিলানী, বিশেষ বক্তা ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ।

এদিকে বিএনপির তারুণ্যের সমাবেশ উপলক্ষে শাহবাগ মোড় ও আশপাশে বিপুলসংখ্যক পুলিশ-র‍্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়। শাহবাগ থানার সামনে ছিল পুলিশের প্রিজন ভ্যান, আর্মড ভ্যান এবং জলকামানের গাড়ি। টিএসসির সামনেও বিপুলসংখ্যক পুলিশের অবস্থান ছিল। এ ছাড়া সাদা পোশাকের গোয়েন্দা সদস্যরাও সতর্কাবস্থায় ছিল। চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসেবে এবং নতুন ভোটার আর তরুণদের কাছে টানতে জুন মাসের প্রথমদিকে বিএনপি ‘তারুণ্যের সমাবেশে’র ঘোষণা দেয়। দলটির অঙ্গসংগঠন যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের সমন্বয়ে এ সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত হয় দলটির নীতিনির্ধারণী ফোরামে।

ঘোষণা অনুযায়ী চট্টগ্রাম (১৪ জুন), বগুড়া (১৯ জুন), বরিশাল (২৪ জুন), সিলেট (৯ জুলাই) ও খুলনায় (১৭ জুলাই) তারুণ্যের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২২ জুলাই ঢাকায় সর্বশেষ সমাবেশ করছে দলটি। এদিকে তারুণ্যের সমাবেশ ঘিরে ব্যাপক যানজট তৈরি হয়েছে। যানজটের ফলে সড়কে ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। বাস, সিএনজি ছাড়া যানজটে আটকা পড়তে হয়েছে অ্যাম্বুল্যান্সকে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা গাড়িগুলোকে আটকা থাকতে হয়েছে যানজটে।

Related Posts

Next Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

I agree to the Terms & Conditions and Privacy Policy.

ফেসবুকে ইউরোপ বাংলা